কিছু পড়ে দেখুন

লায়ন অব দ্য ডেজার্ট (শহিদ উমর মুখতার)

লেখক:

অনুবাদক:

আইনুল হক কাসিমী

সম্পাদক:

আবদুর রশীদ তারাপাশী

প্রকাশক:

কালান্তর প্রকাশনী

পৃষ্ঠাসংখ্যা:

168

প্রচ্ছদ:

আবুল ফাতাহ মুন্না

কোয়ালিটি:

হার্ডবোর্ড বাধাই, ৮০ অফহোয়াইট পেপার

প্রকাশকাল:

একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১৯

সংস্করণ:

একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১৯

ISBN:

978 984 8871 96 3

ভাষা:

বাংলা

দেশ:

বাংলাদেশ

রেটিং:
(2 customer reviews)

৳ 172

উসমানি খিলাফতের প্রাণ তখন ওষ্ঠাগত প্রায়।  তখনই সাম্রাজ্যবাদী পশ্চিমা শকুনগোষ্ঠীর লোভাতুর চোখ গিয়ে পড়ে খেলাফতের অধীনস্থ আফ্রিকার মুসলিম ভূখণ্ডগুলোর ওপর। তারা এসব ভূখণ্ডকে রাজাবিহীন রাজ্য হিসেবে ধরে নেয়। ইতালি ঝাঁপিয়ে পড়ে লিবিয়ায়। ১৯১১ সালে লিবিয়ার সমুদ্র উপকূলে নোঙর করে ইতালিয়ান রণতরীগুলো। পিঁপড়ের মতো বেরিয়ে আসে হাজার হাজার ইতালিয়ান সৈন্য।

সিংহ যেমন আস্তানা ছেড়ে গর্জন করতে করতে বনের খোলা মাঠে বেরিয়ে আসে, তেমনি জাবালে আখজারের আল-কুসুর খানকাহ থেকে রণহুংকারে সদলবলে ময়দানে বেরিয়ে আসেন উমর মুখতার। বয়সের ভারে ন্যুব্জ সানুসি সুফি আন্দোলনের আধ্যাত্মিক জগতের পুরোধা ব্যক্তিত্ব তিনি। রাতের সাধক আর দিনের অশ্বারূঢ়। দাড়ি, টুপি আর আলখাল্লা পরিহিত দরবেশ। কুরআন-হাদিসের মশালধারী একজন জবরদস্ত আলেম।

ঔদ্ধত সিংহের ন্যায় মৃত্যুর প্রতি একেবারে উদাসীন কতজন সাথিকে সঙ্গে নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন দখলদার ইতালিয়ানদের বিরুদ্ধে। ১৯১১ থেকে নিয়ে ১৯৩১ সাল পর্যন্ত এই ২০টি বছর প্রায় ২৬৩ রণক্ষেত্রে অত্যন্ত বীরদর্পে লড়াই করে যান। প্রতিটি যুদ্ধে চোখে শর্ষেফুল দেখতে থাকে ইতালিয়ান বাহিনী।ইতালি সরকার তার সাথে বারবার সমঝোতা করতে চেয়েছে; কিন্তু প্রতিবারই তিনি এককথা বলেছেন; যা ইতিহাস স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ করে রেখেছে—‘আমরা আত্মসমর্পণ করি না; আমরা হয় জিতি, না হয় মরি।’

সেই মরুসিংহ উমর মুখতারের জীবন ও কীর্তি নিয়ে রচিত এই বইটি।

লেখক:

অনুবাদক:

আইনুল হক কাসিমী

সম্পাদক:

আবদুর রশীদ তারাপাশী

প্রকাশক:

কালান্তর প্রকাশনী

পৃষ্ঠাসংখ্যা:

168

প্রচ্ছদ:

আবুল ফাতাহ মুন্না

কোয়ালিটি:

হার্ডবোর্ড বাধাই, ৮০ অফহোয়াইট পেপার

প্রকাশকাল:

একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১৯

সংস্করণ:

একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১৯

ISBN:

978 984 8871 96 3

ভাষা:

বাংলা

দেশ:

বাংলাদেশ

রেটিং:
(2 customer reviews)

2 reviews for লায়ন অব দ্য ডেজার্ট (শহিদ উমর মুখতার)

  1. Kamrul Hasan

    সবুজ শ্যামলিমায় আচ্ছাদিত পাহাড়ের কোল বেয়ে নেমে আসা উপত্যকায় রাতের নিকষকালো অন্ধকারে চিরচেনা সেই সফেদ চাদরখানা গায়ে জড়িয়ে একাগ্রচিত্তে নামাজ পড়ে চলেছেন। দরদমাখা কন্ঠে চলছে মধুর কুরআন তিলাওয়াত। আল্লাহর ভয়ে গাল বেয়ে ঝড়ে পড়েছে ফোটা ফোটা অশ্রুধা।

    তিনি একজন সুফি আল্লাহ ওয়ালা নেককার দ্বীনের পথের মুজাহিদ ব্যক্তি ছিলেন। তাসাউফ আত্মশুদ্ধির চর্চার পাশাপাশি কোরআনের দারস দিতেন এবং কোরআনের আলোকে নিজের জীবন গড়েছেন। কখনো অন্যায় অসত্যের কাছে কখনো মাথা নত করেননি।

    বর্তমান যারা নামাজ পড়েনা দ্বীন ও সুন্নাহ পালনের ধার ধারে না। আবার নিজেকে পীর বলে দাবি করে। তারা কি ওমর মুখতার রহিমাহুল্লাহ কে চিনে না জানে না?

    আজ ‘মরুসিংহ’ খ্যাত মহান বীর উমর মুখতারের শাহাদাতবার্ষিকী। ১৯১২ সাল থেকে শুরু করে প্রায় বিশ বছর তিনি লিবিয়ায় ইতালীয় ঔপনিবেশিক শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করেন। ১৯৩১ সালে ইতালীয়দের হাতে গ্রেপ্তার হন এবং মাত্র চারদিনের প্রহসনমূলক বিচারিক কার্যক্রম শেষে ১৬ সেপ্টেম্বর তাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়।

    উমর মুখতার রহিমাহুল্লাহ বলেন-
    আমরা বর্তমানের ব্যাপারে কৃপণতা করি না; আবার হারিয়ে যাওয়া বস্তুর জন্য আফসোসও করি না।

    উনার জীবনী সম্পর্কে জানার জন্য কালান্তর প্রকাশনীর ড. আলী মুহাম্মদ সাল্লাবী রচিত মুহতারাম আইনুল হক ক্বাসেমী অনুদিত এই বইটি পড়তে পারেন।

  2. MD. SAIDUL ISLAM

    সে লাবণ্যময়ী; স্বাক্ষী দিয়েছে তার সব সতীন,
    সেটাই তো মর্যাদা, যার সাক্ষী দেয় স্বয়ং দুশমন!

    উমর মুখতার। সেই মুজাহিদ যার অনমনীয় ব্যক্তিত্ব, সাহস, বীরত্ব ও নেতৃত্বগুণে তাঁর শত্রুরাও মুগ্ধ হয়েছিল। অবিচার ও জুলুমের বিরুদ্ধে সবসময় তাঁর অবস্থান থাকতো সুদৃঢ়। সবসময় চেষ্ঠা করতেন মাথা উচু করে বেঁচে থাকার। পেশাগত দিক থেকে কুরআন শিক্ষক হলেও উমর মুখতার মরুভূমিতে যুদ্ধকৌশল বিষয়ে দক্ষ ছিলেন। স্থানীয় ভূপ্রকৃতি সম্পর্কে তার সম্যক ধারণা ছিল। তার এই জ্ঞানকে তিনি যুদ্ধক্ষেত্রে ইতালীয়দের বিরুদ্ধে কাজে লাগান। ইতালিয়ান আগ্রাসী বাহিনী যখন লিবিয়ার শহরগুলোতে দখল নিতে শুরু করে তখন তিনি প্রতিরোধ গড়ে তুলেন। নিজের দেশ রক্ষার জন্য হিংস্র সিংহের মত মৃত্যুর প্রতি একেবারে উদাসীন কতজন সাথিকে সঙ্গে নিয়ে ঝাপিয়ে পড়েন দখলদার ইতালিয়ানদের বিরুদ্ধে। তিনি তাঁর ছোট সৈন্যদল নিয়ে সফল গেরিলা  আক্রমণে সক্ষম হন। আক্রমণের পর তাঁর বাহিনী মরুভূমিতে আত্মগোপন করত। তাঁর বাহিনী দক্ষতার সাথে বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা, সৈন্যবহরের উপর আক্রমণ চালায় এবং যোগাযোগ ও সরবরাহে বিঘ্ন সৃষ্টি করে। উমর মুখতারের গেরিলা পদ্ধতির লড়াইয়ে ইতালীয় সৈনিকরা পর্যুদস্ত হয়ে পড়ে। ১৯১১ থেকে নিয়ে ১৯৩১ সাল পর্যন্ত ইতালীয় ঔপনিবেশিকদের বিরুদ্ধে উমর মুখতার প্রায় ২০ বছরব্যাপী লড়াই করেছিলেন। এই সময়ে তিনি প্রায় ২৬৩ রণক্ষেত্রে অত্যন্ত বীরদর্পে লড়াই করেন। প্রতিটি যুদ্ধে চোখে শর্ষেফুল দেখতে থাকে ইতালিয়ান বাহিনী। যাঁর নাম শুনলেই ইতালিয়ান বাহিনীর ঘুম হয়ে যেত হারাম। ইতালি সরকার কিছুতেই তাঁকে দমিয়ে রাখতে সক্ষম না হয়ে, বিভিন্ন প্রলোভন দেখায়। ইতালি সরকার তাঁর সাথে বারবার সমঝোতা করতে চেয়েছে। কিন্তু তিনি ছিলেন নিজের সিদ্ধান্তের উপর অটল। প্রতিবারই একটি কথা বলেছেন;
    আমরা আত্মসমর্পণ করি না…
    আমরা হয় জিতি, না হয় মরি

    ইতালীয় ঔপনিবেশিকদের বিরুদ্ধে উমর মুখতারের প্রায় ২০ বছরব্যাপী লড়াই ১৯৩১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর তার প্রেপ্তারের মাধ্যমে সমাপ্তি লাভ করে। এর কিছুদিন পরেই প্ৰহসনমূলক বিচার শুরু হয়। বিচারে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয় এবং ১৫ সেপ্টেম্বর রায়ে তাকে প্রকাশ্যে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেয়া হয়।

    লিবিয়ায় আগ্রাসী ইতালির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ যুদ্ধের মহানায়ক Lion of the desert উমর মুখতার এর জীবনী নিয়ে ড. আলি মুহাম্মাদ সাল্লাবি’র লিখা বইটির অনুবাদ প্রকাশ করেছেন কালান্তর প্রকাশনী। বইটিতে লিখক উমর মুখতারের জীবনের ঘটনাবলি ছাড়াও উমরকে নিয়ে অন্যদের বক্তব্য, উমরের লেখা চিঠি এবং উমরকে নিয়ে রচিত কিছু কবিতাও স্থান পেয়েছে। এতে ব্যক্তি উমরকে আরও ভালোভাবে জানা ও তাঁর সাহসিকতার পরিচয় পাওয়া যায়। লেখক বইটিকে তিনটি মূল অংশে ভাগ করে আলোচনা করেছেন। প্রথমে উমর মুখতারের জন্ম ও ব্যক্তিজীবনের কিছু গুণাগুণ তুলে ধরেছেন। দ্বিতীয় অংশে ইতালিয়ানদের বিরুদ্ধে তার জিহাদি জীবনের চিত্র ফুটিয়ে তুলেছেন। সবশেষে লেখক উমর মুখতারের গ্রেফতার, বিচার ও ফাসিঁ পরবর্তী দিক আলোচনা করেন।

    বইটি পড়া কেন প্রয়োজন-
    আমরা নিজেদের বীরত্বের ইতিহাস ভুলে পশ্চিমাদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে দিয়েছি। জীবনের সঠিক গন্তব্য সম্পর্কে বেখেয়ালি হয়ে দিকবিদিক ছুটে চলছি। আমাদের জীবনের সঠিক লক্ষ্য খুঁজে পেতে লায়ন ‘অব দ্য ডেজার্ট’
    বইটি অনেক সহায়ক হবে। উল্লেখযোগ্য কিছু বিষয় হল-
    ●উমর মুখতারের জীবন থেকে আমরা শিক্ষা নিতে পারি কিভাবে দুনিয়ার সম্পদের পিছনে না ছুটে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের পিছনে ছুটতে হয়।
    ●কিভাবে সাহসের সাথে বিশাল শত্রুর মুকাবিলা করতে হবে।
    ●ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য কিভাবে নিজেকে বিলিয়ে দিতে হয়।
    ●জীবনের কঠিন মুহূর্তে কিভাবে সত্যের পথে অটল থাকতে হয়।

    বইয়ের নাম: লায়ন অব দ্য ডেজার্ট
    লেখক: ড. আলি মুহাম্মাদ সাল্লাবি
    ভাষান্তর: আইনুল হক কাসিমী
    প্রকাশনী: কালান্তর প্রকাশনী
    মুদ্রিত মূল্য: ২১৪৳
    প্রকাশকাল: একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯

Add a review

Your email address will not be published. Required fields are marked *